বন্দরে অমিত হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

0
56
নারায়ণগঞ্জ বন্দরের আমিন আবাসিক এলাকার মেধাবী ছাত্র অমিত দাস হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী। শুক্রবার বিকেল ৩টায় বন্দর বাজারের সামনে এ কর্মসূচী পালিত হয়। এ সময় বক্তারা অনতিবিলম্ভে অমিতের হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী শাকিলসহ অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। মানববন্ধনে নিহত অমিতের সহপাঠী ও বন্ধু মহলসহ সর্বস্তরের ছাত্রসমাজ অংশ নেয়। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিলের মাধ্যমে বন্দর বাজার হতে ১নং খেয়াঘাট হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ সময় তারা নানা শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে।
সূত্র মতে,বন্দর থানার আমিন আবাসিক এলাকার উত্তম দাসের বাড়ির ভাড়াটিয়া শ্যামল দাসের ছেলে অমিত দাস ও তার দুই বন্ধু শান্ত ও রাব্বি গত শুক্রবার (১২ জুন) রাত ৮ টার দিকে ওই আবাসিক এলাকার শেফা ডকইয়ার্ডের সামনে আড্ডা দিচ্ছিল। এসময় পূর্ব বিরোধের জের ধরে বন্দর বাবুপাড়া এলাকার আরেকটি কিশোর গ্যাং এর সদস্য শাহপরান, শাকিল,সঞ্জয়,সোহেল, ফয়সাল, শুভ, সানী, সোহাগসহ অজ্ঞাত নামা ১৪/১৫ জনের একটি সন্ত্রাসী গ্রæপ ধারালো অস্ত্র-সস্ত্র ও লাঠি-সোঁটা নিয়ে অমিত দাস ও তার দুই বন্ধুর ওপর অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। ওই সময় হামলাকারীরা অমিত দাসসহ তার দুই বন্ধুকে বেদম ভাবে পিটিয়ে আহত করে। এ পর্যায়ে আমিত দাসসহ তার দুই বন্ধু জীবন বাঁচাতে ঘটনাস্থলে থাকা একটি বাল্কহেডের উপরে উঠলে প্রতিপক্ষের সদস্যরা তাদের হত্যার উদ্দেশ্যে ধাওয়া করে এবং আবারও বেদম পিটিয়ে শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে দেয়। পরে শান্ত ও রাব্বি সাঁতার কেটে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও অমিত দাস গভীর পানিতে তলিয়ে যায়।
এ ঘটনার সংবাদ পেয়ে অমিত দাসের পরিবার ও স্বজনরা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের মাধ্যমে নদীতে খোঁজাখুজি করে। ঘটনার দুইদিন পর রবিবার (১৪ জুন) সকালে শীতলক্ষ্যা নদীর মোক্তারপুর এলাকায় শাহ সিমেন্ট কারখানার সামনে অমিতের লাশ ভেসে ওঠে।
এ ব্যাপারে বন্দর থানার অফিসার ইনর্চাজ মো. রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে এক আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
আপনার মতামত লিখুন :