কাঁচপুর করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পাশে- ব্র্যাক

0
80
সোনারগাঁও অঞ্চলের কাঁচপুর ব্র্যাক(দাবি) শাখার ব্যবস্থাপক মো: আমজাদ হোসেনের নেতৃত্বে করোনা সংক্রমন মোকাবেলায় স্বাস্থ্যে বিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে। ক্ষুদ্র সাধারন ব্যবসায়ীদের মাঝে বিভিন্ন খাতে ৪৭ লক্ষ্য টাকা লোন প্রদান করা হয়।
জানাগেছে, বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস সংক্রমন (কোভিড-১৯) মানুষের জীবনযাত্রা আজ অনেকটা থমকে গেছে মহামারি করোনা ব্যাধিতে। আকারে রূপ নেওয়া ভাইরাসের সংক্রমন মৃত্যুকূপে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বাংলাদেশের মানুষও মৃত্যুবরণ এবং সংক্রমিত হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে সাধারন ক্ষুদ্র খেঁটে খাওয়া ব্র্যাক গ্রাহকদের দিক বিবেচনা করে। কাঁচপুর শাখার ব্যবস্থাপক তাঁদের বিষয়টি মাথায় রেখে, বিভিন্ন ব্যবসায়ী পলিসির উপরে, বেঁচে থাকার উপায়ে লোন প্রদান করেন তিনি। এতে করে সাধারন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরাও ব্র্যাক প্রতিষ্ঠানের প্রতি আপন শক্তিতে মেতে উঠেঁন।
স্থানীয় গ্রাহকদের সূত্রমতে জানাগেছে, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে ব্র্যাক তথা এনজিও প্রতিষ্ঠানটির ব্যাপক ভুমিকা রয়েছে। বিশেষ করে করোনা মোকাবেলায় মানুষের ক্রান্তি লগ্নে এগিয়ে আসায়, ক্ষুদ্র গ্রাহকরা কিছুটা হলেও সস্তি ফিরে পেয়েছেন। দুর্দিনে জীবন যুদ্ধে ব্র্যাক রয়েছেন মানুষের পাশে। এটি তাঁদের পরিবারের জন্য ব্যাপক আস্থার স্থান খুঁজে পেয়েছেন। জানাগেছে, কাঁচপুর শাখার দায়িত্বরত ব্যবস্থাপক আমজাদ হোসেনের ভালোবাসায় সাধারন গ্রাহকরা সিক্ত হয়ে পড়েছেন। গ্রাহকদের আর্থিক সঙ্কটাপন্ন বিপদমূখি মানুষের পাশে সর্ব সময়ে দাড়ানোর চেষ্ট করেন তিনি। সে ক্ষেত্রে তার ব্যাপক দায়িত্ব ক্রমে দীর্ঘ তিন বছরের ব্যবধানে, কাঁচপুর শাখাটির অনেকটা উন্নয়ণের ছোঁয়া লেগেছে।
এ বিষয়ে কাঁচপুর ব্র্যাক(দাবি) শাখার ব্যবস্থাপক মো: আমজাদ হোসেন সাংবাদিকদের জানান, দেশের করোনা ভাইরাস(কোভিড-১৯)সংক্রমন ব্যাধি যে হারে মানুষের মাঝে দেখা দিয়েছে। তাঁতে করে আমাদের সাধারন ক্ষুদ্র গ্রাহকদের আয়-উপার্যন অনেক অংশে কমে গেছে। তাই গ্রাহকদের দিক বিবেচনা করে, তাঁদের ব্যবসায়ী পলিসি- কৃষি, খাদ্য, গবাধি পশুর খামার, মুরগি পালন, মৎস্য চাষসহ বিভিন্ন প্রকল্পে প্রায় ৫০ জনকে ৪০ লক্ষ্য টাকা গ্রাহকদের মাঝে লোন প্রদান করে থাকি। তিনি আরও বলেন, করোনা ভাইরাসের এই ক্রান্তি লগ্নে গ্রাহকদের দিক বিবেচনা করে- বিকাশের মাধ্যমে “সেবিকস্” সঞ্চায় দিয়ে থাকি ২৬৫ জনকে ৭ লক্ষ্য টাকা। সর্বমোট গ্রাহকদের মাঝে ৪৭ লক্ষ্য টাকা প্রদান করে থাকি। এধরনের কার্যক্রম অদুর ভবিষ্যতেও আরো অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
আপনার মতামত লিখুন :