কাঁচপুরে জোরপূর্বক ভুমি দখলের চেষ্টা

0
165
সোনারগাঁও কাঁচপুর সোনাপুর ফজলুর রহমান খান নামের খরিদ সূত্রে মালিকানাধীন, পরিচিত খান কলনি নামীয় প্রায় ৬১ শতাংশ ভুমি ৪০ বছরের দখলীয় সম্পত্তি জোরপূর্বক আত্মসাতের চেষ্টা চালিয়েছে ভুমিদস্যু একটি চক্র। জানাগেছে, সোনারগাঁও থানার সোনাপুর এলাকায় গত ১২ জুলাই শনিবার বেলা ৩ টায় মৃত আব্দুল সামাদের ছেলে বাহাউদ্দিন (৬৫), আলাউদ্দিন (৬০), মৃত সালাউদ্দিনের ছেলে মমিন (৩৫), শামীম (৩২), আমিনুল (৩০), আলাউদ্দিন এর ছেলে সিয়াম (২৫), শাওন (২২), বাহাউদ্দিন এর ছেলে মহিন(২২), মৃত জুলহাসের ছেলে সেলিম(৪০), সোহেল(৩৫), মৃত মছেন আলীর ছেলে সগির (৪০), মৃত আঃ কাদিরের ছেলে রমজান (৫৫) আরো অজ্ঞাতনামা ২০/৩০জন একটি সঙ্গবদ্ধ ভাবে লিপ্ত হয়ে, ফজলুর রহমান খানের প্রায় ৪০ বছরের দখলীয় সম্পত্তি জবর দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন অভিযুক্ত ওই চক্রটি। সূত্রমতে, মাহমুদুল হাসান খান রাফিদ পিতা ফজলুর রহমান খান বাদি হয়ে সোনারগাঁও থানায় ওই তাদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এলাকার প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, বেহাকৈর মৌজাস্থিত দাগ নং সিএস ও এসএ ৪৯৪, আরএস ১১৮১ নং দাগে মোট সম্পত্তি ৬১ শতাংশ ফজলুর রহমান খান খরিদ সূত্রের মালিক বটে। দীর্ঘ ৪০ বছরের ভোগ দখলীয় সম্পত্তি, এরিমধ্যে কিছু অংশ ভাড়াটিয়া কলনি নামে দীর্ঘদিনের পরিচিত। এ কলনিটি শ্রমজীবী সল্প আয়ের মানুষের জন্য, সুলাভ মূল্যয় ভাড়া থাকার নির্ধারনের সুযোগ করে দিয়েছেন তিনি। কলনির বাকী কিছু অংশ জলাশয় থাকার কারণে এলাকার ভুমিদস্যুরা জবর দখলের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এবিষয়ে বিবাদীরা সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে উৎসহবোধ করেননি। বাদি মাহমুদুল হাসান খান রাফিদ সাংবাদিকদের বলেন, আমার বাবা ফজলুর রহমান খান সাহেব দীর্ঘ ৪০ বৎসর খরিদ সূত্রে এই সম্পত্তির মালিক। তাই উপরিউক্ত চক্রটি গত ২০ জুন থেকে এখন পর্যন্ত আমাদের ভুমির উন্নয়ণের কাজে বাঁধাবিঘ্ন। এবং স্থানীয় কিছু সংখ্যাক প্রভাবশালী নেতা তথা ইন্দনদাতার আশ্বাসে দখল দারিত্বের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে করে আমরা ব্যাপক ভাবে হয়রানির স্বীকার হয়েছি। এমতাবস্থায় আমি নিজে থানা কক্ষে হাজির হয়ে ওই চক্রটির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রদান করে থাকি। এবং উক্ত বিষয়টি র‌্যাব-১১’র কর্তৃপক্ষের নলেজে দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। এবিষয়ে একাধিকবার এলাকার বিভিন্ন মজলিশে সালিশ ব্যবস্থায়ও কোন প্রমাণনাধি দেখাতে পারেননি। এবিষয়ে উপস্থিত র‌্যাব-১১’র দায়িত্বরত সদস্যদের কাছে কথা বলে জানাগেছে, বাদী পক্ষের ভোগ দখলীয় সম্পত্তি, বিবাদীরা দখল করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। আমরা ঘটনাটি শুনে সরেজমিনে এসে একটি মিউচুয়ালের ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকি। সোনারগাঁও থানার ওসি ও এসআই হাফিজকে মুঠফোনে আইনী প্রক্রিয়া জানার চেষ্টা করে, মোবাইল ফোনে কোন প্রকার দায়িত্ববোধ গ্রহণ করেননি।
আপনার মতামত লিখুন :