দুস্থ নারী ও শিশুদের ৫৫ লাখ ৬৬ হাজার টাকার অনুদান

0
50

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতিতে নারী ও শিশুর বিভিন্ন সমস্যা মোকাবিলায় ‘নির্যাতিত, দুস্থ মহিলা ও শিশু কল্যাণ তহবিল’ থেকে বিভিন্ন উপজেলায় ১ হাজার ৩৫৯ জন নারী ও শিশুকে ৫৫ লাখ ৬৬ হাজার টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে।রোববার (২৬ জুলাই) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ১২তম বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি বেগম মেহের আফরোজ চুমকি সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, বৈঠকে চলমান প্রকল্পগুলো চালু রাখার সুপারিশ করা হয়। এ ছাড়া নারী উদ্যোক্তা সৃষ্টি অব্যাহত রাখা, প্রশিক্ষণ প্রায়োগিক করা, বাল্যবিয়ে রোধ, পথশিশুদের সহযোগিতা বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়। অপ্রত্যাশিত গর্ভধারণ রোধে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ, বর্তমান প্রেক্ষাপটে নারী ও শিশুদের মনোসামাজিক সমস্যা দূরীকরণে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ এবং ডিজিটাল প্রযুক্তির সর্বোচ্চ প্রয়োগের মাধ্যমে শতভাগ কাজ নিশ্চিতের সুপারিশ করা হয়।

জানা যায়, বৈঠকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের স্মরণে শোক প্রকাশ, এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন, শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানানো হয় এবং তাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে পৃথিবী থেকে এ রোগের পরিত্রাণের জন্য মহান আল্লাহর রহমত কামনা করা হয়।

বৈঠকে জানানো হয়, স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে পালনের লক্ষ্যে সদর কার্যালয় ও মাঠ পর্যায়ে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এ ছাড়া অধিদফতরের ভবনের সামনে বেসিন স্থাপন, পানি ও সাবানের ব্যবস্থাসহ ভবনের নিচে, ফ্লোরের টয়লেটে সাবান/হ্যান্ডওয়াশ প্রদান করা হয়েছে এবং ভবনের কক্ষ, ফ্লোর ও ভবন চত্বর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। অধিদফতরের সকল কর্মকর্তা/ কর্মচারীকে মাস্ক ও ফেসশিল্ড সরবরাহ করা হয়েছে। আক্রান্তদের খোঁজখবর নেয়ার জন্য তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এ ছাড়া পরিবহনসহ অফিস কম্পাউন্ড নিয়মিত জীবানুনাশক দিয়ে জীবানুমুক্তকরণ, অফিসে ২৫ শতাংশ উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, বয়স্ক,অসুস্থ এবং গর্ভবতী নারীদের অফিসে না আসা নিশ্চিতকরণ, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা ও অফিসে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরিধান করা নিশ্চিত করা হয়েছে।

করোনাকালে কর্মহীন নারীদের জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতার পন্থা উদ্ভাবন, চলমান প্রকল্পগুলো যাতে বন্ধ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা হচ্ছে। আর ভার্চুয়াল প্রযুক্তির যথাযথ প্রয়োগের মাধ্যমে উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, করোনাভাইরাসে সহায়তা, বাল্যবিবাহ ও নারী নির্যাতনরোধে সহায়তার জন্য স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ নম্বরের সাথে ১০৯ কে লিঙ্ক করে টোল ফ্রি হেল্পলাইন তৈরি করে পত্রিকায় প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। হেল্পলাইনে এপ্রিল হতে জুন পর্যন্ত করোনাভাইরাস সম্পর্কিত ১৭০৯৯২ টি কল গ্রহণ করা হয়েছে। ন্যাশনাল ট্রমা কাউন্সেলিং সেন্টার ও রিজিওনাল ট্রমা কাউন্সেলিং সেন্টারের চিকিৎসা মনোবিজ্ঞানীরা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত টেলিকাউন্সেলিং করছেন। এ ছাড়া ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের আইন কর্মকর্তারা করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশুদের টেলি লিগ্যাল সেবা অব্যাহত রেখেছেন।

কমিটির সদস্য মো. আব্দুল আজিজ ও বেগম শবনম জাহান বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। এ ছাড়া মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওনক আক্তার, মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :