প্রাণের বাংলা আমার জামান ভূঁইয়া

0
47
এ বাংলা আমার প্রাণের চেয়েও বেশি প্রিয় । এই বাংলা স্বাধীন করতে ত্রিশ লক্ষ মানুষের প্রাণ দিতে হয়েছে এবং দুই লক্ষ মা-বোনের ইজ্জৎ দিতে হয়েছে । এক নদী রক্তের বিনিময়ে স্বাধীন হয়েছে এই বাংলা । একটি পতাকার জন্য , একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাস্ট্রের জন্য এতগুলো প্রাণ দিতে হয়েছে । মা-বোনের ইজ্জৎ দিতে হয়েছে । বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নে পাওয়া বাংলাদেশ । সেই ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে শেষ হয়েছে ১৯৭১ এর ১৬ ডিসেম্বরে । কত আন্দোলন আর সংগ্রামের বিনিময়ে আজকের এই স্বাধীন বাংলাদেশ । বঙ্গবন্ধু শেষ পর্যন্ত জীবন দিয়ে গেছেন এই বাংলার মাটিতে । যেখানে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বঙ্গবন্ধুকে মারার সাহস পায়নি , সেখানে বাঙালির কিছু নেমকহারাম সন্তান নির্দ্বিধায় গুলি করে নির্মম ভাবে হত্যা করলো বাঙালী জাতিরজনককে। বাংলার মানুষকে অসহায় আর এতিম বানিয়ে নরপশুরা হত্যা করেছিল ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ এর কালো রাতে বঙ্গবন্ধু আর তার পরিবারের সবাইকে। সেদিন থেকে বাংলার মানুষ এক অসহনীয় যন্ত্রণা ভোগ করে আসছিল। ঘাত আর প্রতিঘাত সয্য করে দিনের পর দিন কতই না কস্ট করেছে একুশটা বছর। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত বাংলাদেশের মানুষ যেন কারগারে বন্ধী ছিল। মিথ্যার উপর চলছিল এই দেশটা। স্বাধীনতার ইতিহাস মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। স্বাধীনতা বিরোধীদের চক্রান্ত আগেও ছিল এখনো আছে। স্বাধীনতা বিরোধীরা সব সময়ই সক্রিয় তাদের মনোভাঞ্চা পুরন করার জন্য। তারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে মনে করেছিল তাদের আর কোন সমস্যা নাই। এবার মনের মত করে বাংলাদেশটাকে পাকিস্তানি কায়দায় পরিচালনা করতে পারবে। কিন্তু বিধি বাম। তাদের সেই আশাতে গুরে বালি। বাংলার স্বাধীনতাকামী মানুষ ঘুরে দাড়ালো আস্তে আস্তে। একুশটা বছর যে জুলুম নির্যাতন তারা করেছে তার জবাব ঠিকই দিয়েছে। তার পরও তারা থেমে নেই। ঘাপটি মেরে থেকে সুযোগ পেলেই আঘাত হানার চেস্টা করতে লাগলো। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যে আওয়ামী লীগ সাড়ে সাত কোটি বাগ্ঙালী নিয়ে দেশ স্বাধীন করলো, সেই আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার খেলায় মেতে থাকলো সব সময়। আজো পর্যন্ত থেমে নেই তারা, যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে তারা । সেই চক্রান্তকারীরা, ভিবিন্ন কায়দায় আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরে নানাভাবে গোলযোগ সৃস্টি করার চেস্টা করছে। সূদুর প্রসারী ষড়যন্ত্র করে আওয়ামীলীগকে ধ্বংস করার চেস্টা করছে সব সময়। রাজাকার আলবদর বাহিনীর সদস্যরা আওয়ামীলীগে ডুকে আওয়ামীলীগের বদনাম করে তারা ফায়দা লুটার চেস্টা চালিয়ে যাচ্ছে। রাজাকারের ছেলেরা এখন আওয়ামী লীগের নেতা বনে গেছে বাংলার এখানে সেখানে। নেমক হারাম সেই রাজাকারের ছেলেরা আওয়ামী লীগে ডুকে নানাভাবে আওয়ামীলীগের ক্ষতি করার চেস্টায় লিপ্ত হয়ে আছে । তার প্রমান বার বারই পাওয়া যাচ্ছে তাদের কার্যকলাপে। দেশকে যারা ভালবেসে বঙ্গবন্ধুর ডাকে সারা দিয়ে মুক্তি যুদ্ধে অংশ নিল, যুদ্ধ করলো নয়টি মাস, কারো হাত গেল, কারো পা গেলো, কারোবা চোখ গেলো, সারাটা জীবন যারা পঙ্গুত্ব জীবন যাপন করছে, তাদের এখন কোন মূল্য নেই। মূল্য আছে যারা স্বাধীনতার চিন্তা করে নাই, যারা স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহন করে নাই কিন্তু কৌশলে টাকা উপার্জন করে ধনী হয়ে গেছে তাদের। আজকে বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন মানবতার মা ” বিশ্ব নেত্রী শেখ হাসিনার বলিস্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ দূর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে তা সেই স্বাধীনতা বিরোধীদের কাছে সহ্য হচ্ছে না । সহ্য হওয়ার কথাও না। যে ভাবে তারা স্বাধীনতা চায়নি, এখনো তারা বাংলা দেশটা সুন্দর ভাবে চলুক সেইটাও চায় না। বাংলা দেশের মানুষ ভাল থাকুক, শান্তি আর সুখে থাকুক তাও চায়না। স্বাধীনতা বিরুধী চক্র এখনো সক্রিয় আছে কি ভাবে দেশকে অস্থিতিশীল করে রাখা যায়। তা হলেই তারা খুসি, তাদের মনে শাস্তি। কিন্তু আওয়ামী লীগের কিছু অর্থ লোভী নেতা সেই কথা ভুলে গিয়ে তাদের ব্যাক্তি স্বার্থে কাজ করার ফলে দেশে আজ এক ধরনের অশান্তির সৃস্টি হয়েছে। এর থেকে উত্তরণের পথ আমার নেত্রী কি ভাবে পাবেন, তা একমাত্র করুনাময় আল্লাহ-ই জানেন । আমার নেত্রী জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা “দেশ রত্ন ” মানবতার মা ” বিশ্ব নেত্রী ” যার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে দুর্বার গতিতে সেই শেখ হাসিনা ই পারবেন এমন পরিস্থিতি থেকে দেশকে সঠিক পথে নিয়ে যেতে ইনশাআল্লাহ। আমি দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করি এক মাত্র তিনিই পারবেন, তাঁর বিচক্ষণতা আর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে এ সংকটময় পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে। যারা প্রকৃত দোষী, তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে দেশের সাধারণ মানুষকে শান্তিময় জীবন যাপন করার সুযোগ দিতে শেখ হাসিনা ই পারবেন এতে কোন সন্দেহ নেই। আজ বাংলাদেশের মানুষ যেন এক কঠিন পথ পারি দিচ্ছে। এ পথ অতি দূর্ঘম পথ । যারা ক্যাসিনোর মত এমন জঘন্য ব্যাবসা করে দেশের কোটি কোটি টাকা লোপাট করছে তাদের কঠিন শাস্তি দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। যাতে এ ধরনের কাজ ভবিষ্যতে আর কেউ না করতে পারে । এখনো বাংলাদেশের মাটিতে অনেক ভাল মানুষ আছে যারা টাকাকে বড় মনে করে না। যারা দেশকে প্রানের চেয়েও বেশি ভালবাসে। যারা জীবন দিয়ে হলেও দেশের মানুষের কল্যানে কাজ করবে এমন মানুষ বাংলা বুকে অনেক আছে। তাই আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি পারবেন একমাত্র শেখ হাসিনাই সেই সব বীর পুরুষদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে। বাংলার মানুষকে সুখ আর শান্তিতে বেঁচে থাকার সুযোগ করে দিতে ইনশাআল্লাহ।
আপনার মতামত লিখুন :