বন্যায় আড়াই শতাধিক মানুষের প্রাণহানি

0
52

দেশের ৩৩ জেলায় চলমান বন্যা দুর্যোগে ২৫১ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। গত ৩০ জুন থেকে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত বিভিন্ন জেলায় ডায়রিয়া, বন্যার পানিতে ডুবে, সাপের কামড়ে, বজ্রপাতসহ অন্যান্য অসুস্থতায় তাদের মৃত্যু হয়। এর মধ্যে ২১০ জনের মৃত্যু হয়েছে পানিতে ডুবে। এছাড়া বজ্রপাতে ১৩ জন, সাপের কামড়ে ২৫ জন, ডায়রিয়া ১ জন এবং অন্যান্য অসুস্থতায় আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

গত ২৬ আগস্ট থেকে ২৭ আগস্ট পর্যন্ত পানিতে ডুবে ৩ জন (রাজবাড়ীতে একজন ও লালমনিরহাটে দুজন) এবং সাপের কামড়ে একজনের (মানিকগঞ্জে) মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ২৭ আগস্ট থেকে আজ (২৮ আগস্ট) পর্যন্ত আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে মানিকগঞ্জে তিনজন ও কিশোরগঞ্জে একজনের মৃত্যু হয়। শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বন্যা দুর্যোগে মোট মৃত ২৫১ জনের মধ্যে লালমনিরহাটে ১৯ জন, কুড়িগ্রামে ২৪ জন, গাইবান্ধায় ১৬ জন, নীলফামারীতে দুজন, রংপুরে তিনজন, সুনামগঞ্জে ৮ জন, সিরাজগঞ্জে ১৫ জন, বগুড়ায় দুজন, জামালপুরে ৩২ জন, টাঙ্গাইলে ৪১ জন, রাজবাড়ীতে ৬ জন, মানিকগঞ্জে ২৬ জন, ফরিদপুরে দুজন, নেত্রকোনায় সাতজন, নওগাঁয় দুজন, কিশোরগঞ্জে ১১ জন, ঢাকায় ৯ জন, শরীয়তপুরে ৮ জন, মুন্সিগঞ্জে ১০ জন, গাজীপুরে ৬ জন এবং গোপালগঞ্জে দুজনের মৃত্যু হয়েছে।

বর্তমানে দেশের ৩৩টি জেলার ২৬৯টি উপজেলার ২ হাজার ৫৯৩টি ইউনিয়নের মধ্যে ১ হাজার ১৬টি ইউনিয়ন বন্যা আক্রান্ত। স্বাস্থ্য অধিদফতরের ২ হাজার ৭৮৫টি মেডিকেল টিম বন্যা আক্রান্ত জেলাগুলোতে চিকিৎসা সেবা প্রদান করছে।

আক্রান্ত জেলাগুলোতে এ পর্যন্ত ডায়রিয়ায় ২৩ হাজার ১৭০ জন, শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহ (আরটিআই) ৮ হাজার ১৩৩ জন, বজ্রপাতে ৪৭ জন, সাপের কামড়ে ৮০ জন, পানিতে ডুবে ২৩৯ জন, চর্মরোগে ১৬ হাজার ১৯৯ জন, চোখের প্রদাহে ১ হাজার ৬৩৬ জন, আঘাতপ্রাপ্ত এক হাজার ২৩৮ জন এবং অন্যান্য রোগে ২০ হাজার ৯৩৯ জনসহ মোট ৫৭ হাজার ৩০১ জন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :