মা-মেয়েকে গণধর্ষণের কথা আদালতে স্বীকার করলেন দুই যুবক

0
61

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলায় মা-মেয়েকে দলবেঁধে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন গ্রেফতারকৃত দুই যুবক। সোমবার (০৫ অক্টোবর) বিকেল ৩টায় হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সুলতান উদ্দিন প্রধানের আদালতে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে এ জবানবন্দি দেন অভিযুক্তরা।

পরে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়। হবিগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক আল আমিন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মা-মেয়েকে দলবেঁধে ধর্ষণের দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন দুই যুবক।

স্বীকারোক্তি দেয়া আসামিরা হলেন- চুনারুঘাট উপজেলার জিবদর এলাকার সফিক মিয়ার ছেলে শাকিল মিয়া (২২) ও একই এলাকার রেজ্জাক মিয়ার ছেলে হারুন মিয়া (২৫)।

রোববার (০৪ অক্টোবর) বিকেলে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। সোমবার তাদের আদালতে নেয়া হয়।

মামলার এজাহার ও পুলিশ জানায়, চুনারুঘাট উপজেলার রানীগাঁও ইউনিয়নের পাহাড়ি এলাকার গরমচড়ি ফরেস্ট মাজারসংলগ্ন একটি বাড়িতে শুক্রবার গভীর রাতে প্রবেশ করে একদল যুবক।

ঘরে ঢুকে মা-মেয়েকে বেঁধে ফেলেন তারা। পরে স্বর্ণের গহনা, টাকা-পয়সা, গরু ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র লুটপাট করেন যুবকরা। লুটপাট শেষে মা (৪৫) ও মেয়েকে (২৫) গণধর্ষণ করে পালিয়ে যান তারা।

ডাকাতরা চলে গেলে মা-মেয়ের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসেন। প্রতিবেশীরা তাদের উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

এ ঘটনার পর শনিবার রাতে তিনজনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে একটি মামলা করেছেন ভুক্তভোগী মা। মামলার পর রোববার বিকেলে অভিযান চালিয়ে দুজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

চুনারুঘাট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) চম্পক ধাম বলেন, এ ঘটনায় শনিবার রাতে তিনজনের নাম উল্লেখসহ আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন ভুক্তভোগী মা। পুলিশ রোববার সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে প্রধান আসামিসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। ভিকটিমদের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :