পুলিশে মেধার মূল্যায়নে ভিন্নধর্মী পরীক্ষার আয়োজন

0
57

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের নির্দেশে অভ্যন্তরীণ সেবা সহজিকরণ ও প্রাতিষ্ঠানিক পেশাদারিত্বের ভিত্তিতে উত্তরণের উপায় হিসেবে নতুন একটি পরীক্ষা চালু করা হয়েছে। এই পদ্ধতিতে অধস্তন কর্মকর্তা ও সদস্যদের পদোন্নতি পরীক্ষা হবে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কর্তৃক কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত।

বুধবার বাংলাদেশ পুলিশের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পদোন্নতি প্রক্রিয়ায় কোনো বিচ্যুতি ও সীমাবদ্ধতার কারণে অযোগ্য লোক পদোন্নতি পেলে যোগ্যরা কাজে উৎসাহ হারায়। এতে সেবার মান কমে যায়। অধস্তন পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের জন্য ব্রিটিশ আমল থেকে চলমান বিদ্যমান পদোন্নতি পরীক্ষায় বেশকিছু সীমাবদ্ধতা ছিল। প্রচলিত এই পদ্ধতিতে ইউনিটভিত্তিক পরীক্ষা গ্রহণ করা হতো। ইউনিট অনুসারে ভিন্ন ভিন্ন সংখ্যক শূন্য পদের বিপরীতে পরীক্ষার মাধ্যমে ইউনিটভিত্তিক পদোন্নতি দেয়া হতো।

নানা কারণে কোনো ইউনিটে কম, কোনো ইউনিটে বেশি সংখ্যক শূন্যপদ থাকতো। কোনো সদস্যের মৃত্যু হলে বা বদলিজনিত কারণে অবসর গ্রহণের ফলে নতুন নতুন পদ শূন্য হতো, নতুন ইউনিট সৃষ্টির কারণেও হতো পার্থক্য।

প্রার্থীর সংখ্যা হেরফেরের কারণে পদোন্নতির সুযোগ সবার জন্য সমান ছিল না। এছাড়া, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করা, অবৈধ আর্থিক লেনদেন ইত্যাদি নানা প্রভাবকের কারণে পদোন্নতিতে সুবিচার বঞ্চিত হওয়ার সুযোগ ছিল। পুলিশের অধস্তন সদস্যদের মধ্যে ছিল হতাশা ও অভিযোগ।

এসব বিষয় ভাবনায় নিয়ে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদের নির্দেশে নতুন এই পদ্ধতিতে অধস্তন কর্মকর্তা ও সদস্যদের পদোন্নতি পরীক্ষা পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কর্তৃক কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত হবে।

এরই মধ্যে সকল ইউনিটের পদোন্নতি পরীক্ষার্থীরা এই প্রথমবারের মত সারাদেশে একই সময়ে একই প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়েছেন। এবারই প্রথম নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবেন। উভয় পরীক্ষার ক্ষেত্রে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কর্তৃক প্রেরিত ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা প্রতি ইউনিটে উপস্থিত থেকে পরীক্ষার মান নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ভূমিকা রেখেছেন ও রাখবেন।

পরীক্ষার উত্তরপত্র পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে বিশেষ নিরাপত্তার মাধ্যমে পাঠানো হয়েছে। উত্তরপত্র মূল্যায়ন করা হয়েছে কম্পিউটারের মাধ্যমে। লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে পুলিশের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রসমূহে। স্বচ্ছতা, যোগ্যতা ও মেধার যথাযথ মূল্যায়নের জন্য সব ক্ষেত্রেই উপস্থিত থাকবেন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ও রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ন্যায্যতা ও সমমানের মূল্যায়ন নিশ্চিতের জন্য সবশেষে কেন্দ্রীয়ভাবে সাক্ষাৎকার নেয়া হবে। ফলাফলের তালিকা প্রস্তুত করে তা থেকে শূন্যপদ পূরণ করা হবে। এর ফলে মেধার মূল্যায়ন ও ন্যায় বিচারের পথ সুগম হবে। পদোন্নতিতে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সঠিক ও যোগ্য ব্যক্তিকে পদোন্নতি দেয়া সম্ভব হবে। গতানুগতিক পদ্ধতির বিপরীতে প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক এই পদোন্নতি প্রক্রিয়া প্রচলনের ফলে নাগরিক সেবায় বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরা অধিকতর মনোযোগের সাথে সেবা নিশ্চিত করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে।

গত ২ অক্টোবর নতুন পদ্ধতিতে সারাদেশে একযোগে নৈর্ব্যত্তিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর ফলাফল আজ বাংলাদেশ পুলিশের কেন্দ্রীয় ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেজে প্রকাশ করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :