লকডাউনোত্তর প্রথম মুক্তি পেল সাহসী হিরো আলম

0
142
ইমরুল শাহেদ : বিভিন্ন চড়াই উৎরাই এবং তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যকে উপেক্ষা করে অবশেষে মুকুল নেত্রবাদী পরিচালিত ‘সাহসী হিরো আলম’ ছবিটি দেশের ৩৮টি সিনেমা হল নিয়ে শুক্রবার ১৬ অক্টোবর মুক্তি পেল। চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সহসভাপতি মিয়া আলাউদ্দিন জানান, ঢাকায় ছবিটি মুক্তি পেয়েছে তিনটি সিনেমা হলে। এছাড়া আর সব সিনেমা হলই ঢাকার বাইরের। তিনি জানান, লকডাউনোত্তর ২১১ দিন পর প্রায় শ’খানেক সিনেমা হল খুলেছে। পরের সপ্তাহে আরো সিনেমা হল খুলবে। বর্তমানে দেশে চলচ্চিত্র প্রদর্শনযোগ্য সিনেমা হলের সংখ্যা হলো ১৮৫টি। এর মধ্যে সবগুলো সিনেমা হল খুলবে কিনা সেটা তিনি নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি। তবে সিনেমা হল খুলতে শুরু করেছে এটাই আশার কথা। এরপর নভেম্বর মাসে মুক্তি পাবে রংবাজী ছবিটি। প্রযোজক পরিবেশক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, জানুয়ারি মাসে মুক্তি পাবে আমার মা ছবিটি। সাহসী হিরো আলম ছবির মুক্তি পাওয়া নিয়ে অনেকেই দ্বিধায় আছেন, লকডাউনোত্তর এ ছবিটি মুক্তি পাওয়াটা চলচ্চিত্রের জন্য উপকারি হলো না। কারণ এ ছবির কারণে যদি দর্শক সিনেমা হলমুখী না হয় তাহলে চলচ্চিত্রশিল্প ক্ষতির দিকেই ধাবিত হবে। তারা বলতে চাইছেন, পুরনো জনপ্রিয় ছবিগুলো দিয়েও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী শুরু হতে পারত। তবে, যে বিষয়টি সবাই বুঝেও উল্লেখ করতে চাইছেন না সেটা হলো, প্রযোজক পরিবেশকরা এখনো দ্বিধায় আছেন সিনেমা হলের প্রতি দর্শক প্রতিক্রিয়া কি হবে। একমাত্র প্রযোজক পরিবেশক হিরো আলমই বলেছেন, সিনেমা হলে দর্শক আসুক বা না আসুক তিনি ছবিটি মুক্তি দিবেনই। মুক্তিযুদ্ধোত্তর ঢাকার চলচ্চিত্রের যাত্রা শুরু হয়েছিল মোস্তফা মেহমুদের মানুষের মন ছবিটি দিয়ে। বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে তাই মানুষের মন ছবিটি ইতিহাসের আকর হয়ে আছে। একইভাবে লকডাউনোত্তর মুক্তি দিয়ে সাহসী হিরো আলম ছবিটিও ইতিহাসের আকর হয়ে গেল, সেটা কেউ মেনে নিক বা না নিক।
আপনার মতামত লিখুন :