সাজগোজ করে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ায় স্ত্রীকে খুন

0
68

সাজগোজ করে বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ায় প্রতিবেশীর রসিকতার জেরে স্বামীর নির্মম নির্যাতনে মৃত্যু হয়েছে কুলসুম বিবি (৩২) নামে এক গৃহবধূর। বৃহস্পতিবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়। এর আগে গত শনিবার মাদারীপুরের শিবচরের দত্তপাড়া ইউনিয়নের চরবাচামারা রফিজউদ্দিন সরদারের কান্দি গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার আব্বাস হাওলাদারের বড় ভাই ফজল হাওলাদারের মেয়ে সেলিনার বিয়ের অনুষ্ঠানে কুলসুম সাজগোজ করে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় এক প্রতিবেশী কুলসুমের বাকপ্রতিবন্ধী স্বামী আব্বাস হাওলাদারকে রসিকতা করে বলেন ‘তোমার বউতো অন্যের সঙ্গে চলে যাবে।’

এ ঘটনায় ঈর্ষান্বিত হয়ে শনিবার সকালে আব্বাস স্ত্রী কুলসুমকে মারধর করেন। প্রতিবেশীরা ঘটনাটি জানতে পেরে প্রাথমিকভাবে মিমাংসা করে দেন। ওই দিন রাতে এই ঘটনায় আব্বাস কুলসুমের হাত-পা বেঁধে বেধড়ক মারপিট করেন।

স্বামীর নির্যাতনে কুলসুম জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এক পর্যায়ে আব্বাস কুলসুমের মৃত্যু নিশ্চিত করতে ছুরি দিয়ে তার গলা কেটে দেন। স্থানীয়রা গৃহবধূর চিৎকারে এগিয়ে গেলে আব্বাস ঘরের দরজা খুলে পালিয়ে যান।

পরে কুলসুমকে মুমূর্ষু অবস্থায় প্রথমে পাঁচ্চর রয়েল হাসপাতাল এরপর ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। পরে ৫ দিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে বৃহস্পতিবার মারা যান কুলসুম। তার দুটি সন্তান রয়েছে।

এদিকে মৃত্যুর সংবাদ এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে পুরো পরিবার নিয়ে এলাকা ত্যাগ করেন আব্বাস। পালিয়ে যাওয়ার সময় তার দুই ভাই জয়নাল ও আয়নালকে আটক করেছে থানা পুলিশ। এই ব্যাপারে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

কুলসুমের ছেলে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র কামরুল হাওলাদার জানায়, ওই রাতে আমি কাকার বাসায় ছিলাম। বাড়িতে এসে দেখি বাবা পলাতক মা হাসপাতালে। কাকির কোলে দুই বছরের বোন রিয়া মনি মায়ের জন্য কাঁদছে। মায়ের সাথে আর কথা হয়নি। আজ দুপুরে মায়ের মরামুখ দেখতে হয়েছে।

কুলসুমের মা বরু বিবি জানান, মাঝে মধ্যে আব্বাস ও তার পরিবারের লোকজন অকারণে আমার মেয়েকে নির্যাতন করত। এখন একজনের রসিকতার জেরে আমার মেয়েকে মেরে ফেলল। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

দত্তপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের আইসি এমদাদ হোসেন জানান, এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুজনকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন অবস্থায় রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :