বঙ্গবন্ধু সড়কে ময়লার স্তুপ

0
76

সড়কের উপর ময়লা-আবর্জনার বিশাল স্তুপ। সেখান থেকে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। কাপড়ে নাক ঢেকে চলতে হচ্ছে পথচারীদের। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৫ নং ওয়ার্ডের আলম খান লেনে পুরাতন কোর্ট ভবনের সামনে সড়কের উপরে প্রতিদিনের চিত্র এটি।

এতে সৃষ্ট ময়লার স্তুপের কারণে সড়কটি ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। ময়লার দূর্গন্ধে এ সড়কে চলাচলকারী হাজারো মানুষের নাভিশ্বাস চরমে, সড়কটি দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়ছে পথচারীরা। সড়কটি ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হলেও তা যেন দেখার কেউ নেই।

জানা যায়, ২০১১ সালের নারায়ণগঞ্জ, কদমরসূল ও সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে বিলুপ্ত করে গঠিত হয় দেশের ৭ম সিটি কর্পোরেশন তথা নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। সিটি কর্পোরেশনে রয়েছে বেশ কয়েকজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও কর্মকর্তা। কিন্তু সঠিক সময়ে নগরীর অনেক স্থানের ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার করা হয় না। ফলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় নগরবাসীকে।

আরও জানা যায়, আগে নগরীর বিভিন্ন স্থানের ময়লাগুলো অফিস আওয়ার বা অফিস-আদালতের কার্যক্রম শুরুর আগেই ময়লাগুলো ট্রাকে করে সরিয়ে নিয়ে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা হতো। তবে, বিগত কিছুদিন যাবৎ প্রতিদিন আর ময়লা পরিস্কার করা হয় না। কিন্তু কেন সঠিক সময়ে ময়লাগুলো সরানো হয় না তা জানেনা স্থানীয়রা।

স্থানীয় এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বলেন, আগে প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে ১০ টার মধ্যে ময়লাগুলো এখান থেকে সরিয়ে নেয়া হতো। কিন্তু প্রায় মাস খানেকেরও বেশী সময় ধরে সপ্তাহে একদিন বা দুদিন ময়লাগুলো সরানো হয়। ফলে সপ্তাহের বেশীর ভাগ সময়ই এভাবে রাস্তার উপর ময়লা আবর্জনার স্তুপ হয়ে থাকে।
আরও অনেকে জানায়, সড়কের ওপর আবর্জনার স্তুপ দেখে মনে হয় এটা রাস্তা তো নয় যেন ময়লার ভাগাড়। এ ময়লার দুর্গন্ধ সহ্য করেই বাধ্য হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। কিন্তু চলাফেরা করার সময় অবশ্যই নাক চেপে ধরে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, পুরাতন কোর্ট ভবনের সামনে বঙ্গবন্ধু সড়কের উপর বিশালাকার ময়লার স্তুপ হয়ে আছে। স্তুপের দুর্গন্ধে মানুষকে নাকে রুমাল দিয়ে চলাচল করতে হয় সড়কের পাশে গড়ে উঠা এ ময়লার ভাগাড়ের কারণে।

এমতাবস্থায় কর্তৃপক্ষের এ বিষয়ের উপর সু-দৃষ্টি একান্ত প্রয়োজন বলেও মনে করেন সচেতন মহল। এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে নাসিকের পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা হিরণ বলেন, যে ট্রাক দিয়ে এ স্থানের ময়লা ফেলা হতো সে ট্রাক ড্রাইভারের মা মারা গেছে। তাই কিছুটা দেরী হয়েছে। তবে আমরা ময়লা সরিয়ে ফেলেছি।

আপনার মতামত লিখুন :