যৌনতাই তরুণী করে রেখেছে সুন্দরী নায়িকা ইলিয়ানাকে

0
104

দক্ষিণ ভারতের সিনেমায় অপ্সরী তিনি। বলিউডেও আলো ছড়িয়েছেন। বরফিসহ বেশ কিছু সিনেমা দিয়ে গ্ল্যামার আর মেধাবী অভিনয় উপহার দিয়েছেন। তিনি ইলিয়ানা ডি ক্রুজ। ক্যারিয়ারজুড়ে তার বিতর্কও কম নয়। ৩ সন্তানের বাবা এক চিত্রগ্রাহকের সঙ্গে প্রেম করে ব্যর্থ হয়েছেন। সেই প্রেমিকের সঙ্গে খোলামেলা মেলামেশা ও যৌন জীবন নিয়ে স্পষ্টভাষী ইলিয়ানা অনেকবারই সমালোচনার মুখে পড়েছেন।

আনন্দবাজার ডিজিটাল ইলিয়ানাকে নিয়ে আজ একটি ফটো ফিচার করেছে। সেখানে উঠে এসেছে এই সুন্দরীর জীবন ও জানা অজানা অনেক কথা। সেখানে বলা হয়েছে এই অভিনেত্রীর জন্ম মুম্বাইয়ে, ১৯৮৭ সালের ১ নভেম্বর।

তার বাবা ছিলেন আইনজীবী। মা চাকরি করতেন হোটেলে, রিলেশনশিপ ম্যানেজার হিসেবে। জন্মের পরে প্রথম ১০ বছর ইলিয়ানা ছিলেন মুম্বাইয়ে। তার পর বাবা মায়ের সঙ্গে চলে যান গোয়ায়। তারা ছিলেন গোয়ার ক্যাথলিক খ্রিস্টান পরিবার।

মায়ের কাজের জায়গা ছিল গোয়ার যে হোটেল, সেখানে প্রায়ই যেতেন ইলিয়ানা। হোটেলের ম্যানেজার কিশোরী ইলিয়ানাকে প্রস্তাব দেন মডেলিং শুরু করার। কিন্তু ইলিয়ানা সেই প্রস্তাবে গুরুত্ব দেননি প্রথমে।

এক বার হোটেলেই মার্ক রবিনসনের সঙ্গে ইলেয়ানার আলাপ করিয়ে দেন ওই ম্যানেজার। এরপর রবিনসনের সঙ্গে কথা বলে ইলিয়ানার ধীরে ধীরে মডেলিংয়ের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়। মার্ক তাকে পোর্টফোলিয়ো তৈরির পরামর্শ দেন।

ক্লাস টুয়েলভে পড়ার সময় থেকেই স্থানীয় স্পা এবং অন্য সংস্থার হয়ে মডেলিং শুরু করেন। সে সময় নিজের একটি পোর্টফোলিও তৈরি করে মার্ক রবিনসনের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। কিন্তু প্রথম দর্শনেই সেই পোর্টফোলিয়ো বাতিল করে দেন মার্ক। বলেন, ছবিতে যা দেখাচ্ছে তার থেকে ইলিয়ানা অনেক বেশি সুন্দরী।

এর পর পেশাদারকে দিয়ে পোর্টফোলিও তৈরি করান ইলেয়ানা। তার পর কাজ পেতে সমস্যা হয়নি। গোয়া থেকে ক্যারিয়ারের স্বার্থে তিনি চলে যান মুম্বাই। পরপর বিজ্ঞাপনে কাজ পেতে থাকেন ইলেয়ানা। বিজ্ঞাপনে তিনি কাজ করেন রাকেশ রোশনের সঙ্গেও। রাকেশের সুবাদে ইলিয়ানার পরিচয় হয় বেশ কয়েক জন পরিচালক ও প্রযোজকের সঙ্গে। কিন্তু বেশ কিছু দূর কথা এগিয়েও হিন্দি ছবিতে অভিনয় অধরা ছিল বহুদিন।

মডেলিংয়ের পাশাপাশি অভিনয়ের একটা ছোটখাটো কোর্স করেন। ২০০৬ সালে তিনি সুযোগ পান দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিতে অভিনয়ে। সে বছরই মু্ক্তি পায় তার প্রথম ছবি, তেলুগু ইন্ডাস্ট্রিতে ‘দেবদাসু’। ছবিতে রাজি হওয়ার প্রধান কারণ ছিল বিদেশে দেড় মাস শুটিং পর্ব। পাশাপাশি পারিশ্রমিকও ভাল ছিল।

ইলিয়ানা জানতেন শুটিংয়ে তার ভাষা নিয়ে সমস্যা হবে। তার আশঙ্কা সত্যি হয়েছিল। তেলুগু তার কাছে ছিল দুর্বোধ্য। ফলে ইউনিটে তাকে নিয়ে যথেষ্ট হাসিঠাট্টা হত। কিন্তু তিনি হার মানেননি। ভাষাকে আয়ত্ত করতে না পারলেও অভিনয় করেন মনপ্রাণ দিয়ে। ছবিটি বক্স অফিসে সফল হয়েছিল। ইলেয়ানার অভিনয়ও প্রশংসিত হয়।

প্রথম ছবি সুপারহিট হওয়ার ফলে তার আর সুযোগের অভাব হয়নি। একটা ছবির শ্যুটিং শেষ হওয়ার আগেই নতুন ছবির অফার পেতেন তিনি। একসঙ্গে তিন-চারটি ছবিতেও অভিনয় করতেন তিনি। তিনি দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিতে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত নায়িকা হয়ে ওঠেন।

সে সময়ে দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিতে একাধিক নায়কের সঙ্গে তার সম্পর্কের গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল। তাদের মধ্যে অন্যতম প্রভাস। তবে প্রথমে তাঁরা দু’জনেই এই গুঞ্জন অস্বীকার করেছেন।

ইলিয়ানা অভিনীত তেলুগু ছবি ‘পোকিরি’-র হিন্দি সংস্করণ ছিল ‘ওয়ান্টেড’। ছবিতে সালমান খানের বিপরীতে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি রাজি হননি। কারণ তার মনে হয়েছিল একই বিষয়ের উপর একাধিক ভাষায় অভিনয় করবেন না। তাছাড়া সে সময় তার পরীক্ষাও ছিল।

এরপর ‘কিক’ ছবিতেও সালমান খানের বিপরীতে অভিনয়ের সুযোগ তিনি ফিরিয়ে দেন। দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিতে সুপারস্টার হওয়ার পরে তিনি সালমানের বিপরীতে কাজ করতে চাননি। কারণ তার মনে হয়েছিল এর ফলে প্রচারের সব আলো কেড়ে নেবেন সালমানই। তার নিজের কোনো সুবিধে হবে না।

তবে বলিউডেই ‘বরফি’ ছবিতে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হন ইলিয়ানা। প্রিয়ঙ্কা চোপড়া, রণবীর কাপুরের মতো তারকার সঙ্গে স্ক্রিনশেয়ার করেন তিনি। এই ছবিতে তিনি বাঙালি তরুণীর চরিত্রে অভিনয় করেন। ছোট পরিসরে বড় তারকাদের পাশেও তিনি প্রচারের আলো নিজের উপর টানতে সফল হন।

তবে সাফল্য সত্ত্বেও বেশি হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেননি ইলেয়ানা। পরিবর্তে তিনি বেছে বেছে কাজ করতেই ভালবাসেন। এই বছরই তাকে দেখা যাবে দু’টি হিন্দি ছবিতে। হর্ষদ মেটার জীবন নিয়ে তৈরি ‘দ্য বিগ বুল’ ছবিতে তিনি অভিনয় করছেন অভিষেক বচ্চনের বিপরীতে। রণদীপ হুডার সঙ্গে কাজ করবেন ‘আনফেয়ার লাভলি’ ছবিতে।

অভিনয়ের গুণমানের সঙ্গে আপস না করলেও ইন্ডাস্ট্রি তাকে প্রত্যাখ্যান করেছে, আক্ষেপ ইলিয়ানার। তার অভিযোগ, কোনো নায়ক বা পরিচালক বা প্রযোজকের প্রেমিকা না হওয়ার জন্য বহু ছবি থেকে শেষ মুহূর্তে তিনি বাদ পড়েছেন। এর ফলে তিনি অবসাদেরও শিকার হয়ে পড়েন।

ইন্ডাস্ট্রির বাইরে অস্ট্রেলীয় ফোটোগ্রাফার অ্যান্ড্রু নিবোনের সঙ্গে দীর্ঘ দিন প্রেমের সম্পর্কে ছিলেন ইলিয়ানা। সোশাল মিডিয়ায় অ্যান্ড্রুকে তার স্বামী বলেও পরিচয় দিতেন নায়িকা। অনুরাগীরা ধরে নিয়েছিলেন, তাদের গোপনে বিয়ে হয়ে গিয়েছে। তার ভারী চেহারা দেখে গুঞ্জন ছড়িয়েছিল, তিনি কি সন্তানসম্ভবা? সব জল্পনা উড়িয়ে দেন ইলিয়ানা নিজেই। ২০১৯ সালে শোনা যায় তাদের বিচ্ছেদের খবরও।

অ্যান্ড্রু বিবাহিত এবং তিন সন্তানের বাবা ছিলেন। সব জেনেও ইলিয়ানা এই সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তাদের সম্পর্ক ভেঙে যায়। ব্রেকআপের পরে ইলিয়ানা গভীর অবসাদের শিকার হন। মানসিক অবস্থা স্বাভাবিক করতে তিনি থেরাপিস্টের দ্বারস্থ হন।

ধীরে ধীরে মানসিক জীবনে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরে আসেন। বলিউডে এখনও দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রির মতো জনপ্রিয়তা পাননি ইলিয়ানা। কিন্তু তার পরেও তাকে নায়িকা হিসেবে গুরুত্ব দেওয়া হয়। কাজের সুযোগ না এলেও বাছাই করেই ছবিতে অভিনয় করতে চান ইলেয়ানা। তার কাছে সংখ্যার তুলনায় গুণমানই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

তবে খ্যাতির পাশাপাশি এসেছে বিতর্কও। যৌনতা নিয়ে মন্তব্য করার ক্ষেত্রে বরাবরই তিনি স্পষ্টবাদী। একবার বলেছিলেন, যৌনতা তার কাছে রিল্যাক্সেশনের অন্যতম মাধ্যম। যৌনতা নাকি তাকে তরুণী থাকতে সাহায্য করে। যৌনতা নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলতে তিনি কুণ্ঠাহীন।

এ ছাড়াও বিতর্ক আছে। ২০১২ সালে মোহন নটরাজন নামে এক প্রযোজক অভিযোগ করেছিলেন, তার কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা অগ্রিম নিয়ে ইলিয়ানা ফেরাননি। তবে বিতর্ক ছাপিয়ে শেষ অবধি নিজেকে আরও মেলে ধরতেই আগ্রহী গোয়ার এই সুন্দরী।

আপনার মতামত লিখুন :