ফতুল্লায় চলন্ত ট্রেনের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষ, চালক আহত

0
48

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় চলন্ত ট্রেনের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষ হয়েছে। এতে মাইক্রোবাসটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে চালক গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ফতুল্লার পাগলা নন্দলালপুর এলাকায় রেলক্রসিংয়ে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেল সাড়ে চারটার দিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকার কমলাপুর স্টেশনের উদ্দেশে ছেড়ে আসে যাত্রীবাহী একটি লোকাল ট্রেন। ফতুল্লার পাগলা নদন্দলালপুর রেল ক্রোসিংয়ে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে চলমান ডিএনডি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজে ব্যবহৃত নোহা মডেলের একটি মাইক্রোবাস ক্রসিং পার হওয়ার সময় সংঘর্ষ হয়। দ্রুতগামী ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাসটি দুমড়ে-মুচড়ে উল্টে গিয়ে প্রায় ৪০০ ফুট (আধা কিলোমিটার) দূরে গিয়ে পড়ে। মাইক্রোটিতে তখন চালক ছাড়া আর কেউ ছিলেন না। ফলে চালক মাথায় ও হাতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা এসে মাইক্রোবাসটির ভেতর থেকে আহত চালক আব্দুল জলিলকে (৩৫) উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান। খবর পেয়ে ডিএনডি প্রকল্পে দায়িত্বরত সেনাবাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন।

jagonews24

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে রেলওয়ে পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মোকলেছ জানান, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) মেগা প্রকল্পে দায়িত্বেরত সেনাবাহিনীর সদস্যদের যাতায়াতে (ঢাকা-মেট্রো-চ ১৯-৯১১১) নোয়া মাইক্রোটি ব্যবহৃত হয়। বিকেল তিনটার দিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রেন কমলাপুর রেলস্টেশনে যাচ্ছিল। এসময় নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর থেকে ওই নোয়া মাইক্রোটি বেসরকারি চালক আব্দুল জলিল একাই চালিয়ে সেনাবাহিনীর সদস্যদের নিয়ে আসতে ফতুল্লার পাগলা এলাকায় যাচ্ছিলেন। তখন ফতুল্লার নন্দলালপুর এলাকায় একটি অবৈধ রেলক্রসিং পার হওয়ার সময় ট্রেন এসে মাইক্রোটিকে টেনেহিঁচড়ে অন্তত ৪০০ ফুট দূরে নিয়ে ফেলে দেয়। ওই সময় স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে মাইক্রো থেকে চালককে উদ্ধার করে পাগলা এলাকায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চালক আব্দুল জলিলকে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানো হয়।
রেলওয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান, চালক আব্দুল জলিলের বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হয়েছে। তার বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। জলিল সেনাবাহিনীর গাড়ি চালক হলেও পেশায় তিনি বেসামরিক।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম হোসেন বলেন, ‘অবৈধ রেলক্রসিংয়ের বিষয়ে আমরা রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছি। সেখানে এর আগেও একাধিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। ওই স্থানটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ।’

আপনার মতামত লিখুন :