‘কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংশ্লিষ্টতায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ বাড়ছে’

0
65

তিতাসসহ সরকারের গ্যাস কোম্পানিগুলোর একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীর কারণে গ্যাসের অবৈধ সংযোগ দিন দিন বেড়েই চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে সংসদীয় কমিটিতে। এ ছাড়া গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপন কাজে ধীরগতির জন্যও একশ্রেণির কর্মকর্তা-কর্মচারীকে দায়ী করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়।

কমিটির সভাপতি মো. শহীদুজ্জামান সরকারের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. আবু জাহির, মো. নূরুল ইসলাম তালুকদার, মো. আছলাম হোসেন সওদাগর, মোছা. খালেদা খানম, বেগম নার্গিস রহমান এবং মো. নুরুজ্জামান বিশ্বাস অংশ নেন।

কমিটি প্রি-পেইড মিটার স্থাপন কাজ দ্রুততার সঙ্গে শেষ করার পাশাপাশি অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আরো কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়। এক্ষেত্রে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সংশ্লিষ্টতা থাকলেও ছাড় না দিতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি শহীদুজ্জামান সরকার সাংবাদিকদের বলেন, ‘গ্যাসের অবৈধ সংযোগ যেখানে দিন দিন কমার কথা, সেখানে উল্টো বেড়েই চলছে। বিষয়টি উদ্বেগজনক। আমাদের মনে হয়েছে যতটা গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি দেখা দরকার তা হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে মনে হয়েছে একশ্রেণির লোকের সুবিধা কমে যাবে, যার কারণে প্রি-পেইড মিটার স্থাপন কাজে গতি আসছে না।’

জানা গেছে, অবৈধ গ্যাস সংযোগের পেছনে বিভিন্ন সময় সংসদ সদস্যসহ জনপ্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত থাকার প্রসঙ্গটিও বৈঠকের আলোচনায় উঠে আসে। কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট আবু জাহির প্রসঙ্গটি তোলেন। এক্ষেত্রে কোনো জনপ্রতিনিধিকে যেন ছাড় না দেয়া হয় সেই পরামর্শ দেন তিনি।

গ্যাসের বকেয়া বিল বন্ধে প্রি-পেইড মিটার সংযোগ দ্রুততম সময়ে চালুর ব্যাপারে কমিটি থেকে জোর সুপারিশ করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :