সমলিঙ্গের বিয়ে স্বীকৃতি না দেয়া অসাংবিধানিক : জাপানের আদালত

0
63

জাপানের একটি জেলা আদালত এক যুগান্তকারী সিদ্ধান্তে সমলিঙ্গের বিয়েকে স্বীকৃতি না দেয়া ‘অসাংবিধানিক’ বলে রায় দিয়েছেন। খবর বিবিসির।

জাপানের সংবিধানে বিয়ে বলতে শুধু ‘উভয় লিঙ্গের’ মধ্যে বিয়ে হওয়াকেই বোঝায়। জি-৭ এর দেশগুলোর মধ্যে জাপানই একমাত্র দেশ যেখানে সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ নয়। কিন্তু বুধবার দেশটির সাপ্পোরো শহরের আদালত রায় দেন যে, দম্পতিদের সমঅধিকারের যে নিশ্চয়তা সংবিধান দেয়, সমলিঙ্গের বিয়ে অবৈধ রাখার ফলে এই নিশ্চয়তা অস্বীকার করা হচ্ছে।

আদালতের এই রায়কে জাপানের সমকামী ও অন্যান্য যৌন সংখ্যালঘুদের জন্য এক প্রতীকী বিজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

সমলিঙ্গের কয়েকটি দম্পতি জাপানের বিভিন্ন অঞ্চলের আদালতে এ নিয়ে মামলা দায়ের করেছিলেন। মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার অভিযোগ তুলে তারা আদালতের কাছে ক্ষতিপূরণও দাবি করেছিলেন। ভিন্ন লিঙ্গের দম্পতিদের মতো সমলিঙ্গের দম্পতিরা একইরকম অধিকার না পাওয়ায় তারা এই দাবি করেন।

সাপ্পোরোর আদালত দম্পতিদের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১০ লাখ ইয়েন দিতে অস্বীকৃতি জানান। তবে সমলিঙ্গের বিয়ে মেনে না নেয়াকে অসাংবিধানিক বলে রায় দেন।

বাদীদের মধ্যকার একজন আই নাকাজিমা বলেন, ‘এটি জাপানে একটি বড় পদক্ষেপ…আমাদের স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করতে আমরা আরও কাছাকাছি পৌঁছাচ্ছি।’

তবে এখনো আরও পথ বাকি আছে। যদি সকল জেলা আদালত সমলিঙ্গের বিয়েকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করেন, তবুও জাপানে সমলিঙ্গের বিয়ে বৈধ হবে কিনা সে নিশ্চয়তা এখনই দেয়া যাচ্ছে না। কারণ এই মুহূর্তে এই আইন পরিবর্তন করতে রাজনৈতিক পরিস্থিতি সবচেয়ে ‘অনাগ্রহী’ অবস্থায় রয়েছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাপানের সংবিধানে সংজ্ঞায়িত করা হয় বিয়ে হলো- উভয় লিঙ্গের মধ্যকার সম্মতির ভিত্তিতে বিয়ে। এর ব্যাখ্যায় সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, সে সময় সমলিঙ্গের বিয়ের বিষয়টি সামনে আসেনি।

তবে এই মামলার বাদীদের আইনজীবীরা বলছেন, জোর করে বিয়ে দেয়া রুখতেই সংবিধানে এমনটা উল্লেখ করা হয়েছে, সংবিধানের কোথাও সমকামীদের বিয়ে নিষিদ্ধ করে কিছু বলা হয়নি।

আপনার মতামত লিখুন :