অনুষ্ঠিত হলো ওমেন্স জোন এর জামদানী কাষ্টমার মিট আপ

0
122
সময়ের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে দেশীয় শিল্প। প্রায় হারাতে বসা দেশীয় পন্যের প্রসার ঘটছে খুব দ্রুত। কারণ এই শিল্পকে নিয়ে কাজ করছেন আমাদের উদ্যোক্তারা। বিশেষ করে নারী উদ্যোক্তাদের স্বপ্ন ও বাস্তবতার এক দারুণ সেতু বন্ধন তৈরি হয়েছে দেশীয় পোশাক শিল্পে। একঝাক নারী উদ্যোক্তার অক্লান্ত শ্রম ও মেধার ফলাফল পাচ্ছে এখন উদ্যোক্তারা।
গত ১৯ শে মার্চ রোজ শুক্রবার রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ক্লাব মিক্স রেস্টুরেন্টে ওমেন্স জোন এর কাস্টমার মিট আপ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দেশী পণ্যের ভিত মজবুত কারী লাখ লাখ উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণা রাজিব আহমেদ ও জামদানী রানিখ্যাত উদ্যোক্তা কাকলী রাসেল তালুকদার সহ অনেক উদ্যোক্তা।
রাজিব আহমেদ ওমেন্স এন্ড ই কমার্স এর একজন এ্যাডভাইজার। সেইসাথে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের একজন কমিউনিটি লিডার।
কাস্টমার মিট আপ মানে ই শুধু দেখা ও খাওয়া দাওয়া না। ওমেন্স জোন এর স্বত্তাধিকারী ফারহানা খান জানান, তিনি তার উদ্যোক্তা জীবনের প্রতিটি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন রাজিব আহমেদ স্যারের নির্দেশনা থেকে। কাস্টমার মিট আপ তেমনই এক পরিকল্পনা, যা রাজিব আহমেদ তৈরী করেন। এর মাধ্যমে উদ্যোক্তার জন্য এক বিশাল সুযোগ তৈরি হয় কাস্টমারে থেকে ভালো মন্দ জানার ও তাদের সাথে পারস্পরিক সম্পর্ক তৈরির। কাস্টমার মিট আপ এর মাধ্যমে পণ্যের পরিচিতির প্রসার কয়েকগুণ বৃদ্ধি ও পায়।
বর্তমানে জামদানির চাহিদা রয়েছে দেশীয় পোশাকের মধ্যে সর্বশীর্ষে। কাস্টমার আর উদ্যোক্তাদের মিল বন্ধন ই বলে দেয় দেশি পণ্যের ইন্ডাস্ট্রি কতটা শক্ত অবস্থানে এসে দাড়িয়েছে। দিনে দিনে এর চাহিদা আরো বাড়ছে, ফলে শুধু উদ্যোক্তার নয়, লাভবান হচ্ছেন উৎপাদনকারী তাতী সহ নানা খাতের দেশী পন্য উৎপাদনকারীরা।
সেইসাথে দেশের অর্থ বিদেশী পন্য কেনার জন্য ব্যয় হচ্ছে না। তা দেশেই থাকছে। তাই সামগ্রীকভাবেই আমাদের দেশের লাভ।
আপনার মতামত লিখুন :