মেঘনা ও পদ্মা ডিপো ঝুঁকিপূর্ণ ॥ অবৈধ তেলের দোকান গড়ে ওঠায় দূর্ঘটনার আশংকা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ জরুরী

0
59

প্রধান সড়ক ডিএনডি হতে মেঘনা ও পদ্মা ওয়েল কোম্পানী লিমিটেড এর গোদনাইল ডিপোর মেইন গেইট পর্যন্ত সংযোগ সড়কের দুইপাশে অবৈধ তেলের দোকান গড়ে ওঠায় ডিপো দুটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পরেছে। যে কোন সময় আগুনের মতো ভয়াবহতায় বড় কোন ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশংকা করছে স্থানীয় এলকাবাসী। সোমবার দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জে গোদনাইল এসও এলাকায় মেঘনা ডিপো সংলগ্ন ফিরোজের গোডাউন থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটলে পার্শ্ববর্তী তিনটি বাড়ীতে ছড়িয়ে পরে এবং বাড়ীর মালামাল সহ জ্বালানী তেল মজুদের গোডাউন পুড়ে যায়। যার ফলে স্থানীয় এলাকাবাসী নিরাপত্তাহীনতায় শংকিত ও আতংকিত হয়ে পড়েছে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত ২২ মার্চ আদমজী ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট মেঘনা ডিপো সংলগ্ন আগুন লাগার ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রায় এক ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ করে। আদমজী ইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার রুহুল আমীন মোল্লা জানান গোডাউনে অকটেন, পেট্রোল, ডিজেল, কেরোসিন ও মবিলসহ বিভিন্ন দাহ্য পদার্থ জ্বালানি তেল থাকায় আগুনের ভয়াবহতা তীব্র হয়। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছে ফায়ার সার্ভিসের ইউনিট। আগুনের লেলিহানে চার পাশে বসবাসরত মানুষজন ঘর থেকে বেরিয়ে যায় এবং কান্নাকাটির রোল পড়ে যায়। তাদের আত্মচিৎকারে এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের ঘটনা ঘটলেও আগুনে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
আরও জানা যায়, মেঘনা ও পদ্মা ডিপোতে ট্যাংকলরী অবাধে যাতায়াত করতে পারছে না শুধু মাত্র অবৈধভাবে গড়ে ওঠা বেশকিছু অবৈধ তেলের দোকানের কারনে। ট্যাংকলরী চলাচলসহ রাস্তার মধ্যদিয়ে মানুষ জনের যাতায়াতেরও বিঘœ ঘটে। এছাড়াও রাস্তার দুই পাশে ট্যাংকলরীর মালিক পক্ষ জোর পূর্বক রাস্তার উপর গাড়ি পার্কিং ও মেরামতের কাজ করায় প্রতিদিন বিমান বন্দরের জন্য বোঝাইকৃত জেডএ-১ বহনকারী ট্যাংকলরী সমূহ চলাচলে বাধাগ্রস্থ হয় বলে ডিপো কর্তৃপক্ষের অভিযোগ রয়েছে। বিমানের জ্বালানিসহ সকল প্রকার তেল সরবরাহ নিশ্চিত করার লক্ষে সড়কটির দুইপাশে অবস্থিত অবৈধ ভাবে গড়ে ওঠা তেলের দোকানগুলো উচ্ছেদ এবং অবৈধ ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে ডিপো কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন।
অন্যদিকে বার্মাস্ট্যান্ডে পদ্মা ডিপো ও এসও এলাকায় মেঘনা ডিপোর আশেপাশে বসবাসরত এলাকার লোকজন অবৈধ তেলের দোকানগুলির কারণে শংকিত ও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। যে কোন সময় ভয়াবহ আগুনের মতো দূর্ঘটনাসহ বড় কোন দুর্ঘটনার আশংকায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় দিন কাটাচ্ছে সাধারণ মানুষ। এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

আপনার মতামত লিখুন :