লকডাউনকে পুঁজি করে মাদক পরিবহন করলে ফল ভালো হবে না : র‍্যাব

0
137

মাদক কারবারিদের হুঁশিয়ারি দিয়ে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেছেন, ‘কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে যারা মাদক ব্যবসা করছেন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

রোববার (৪ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর উত্তরা সোনারগাঁ জনপথ রোডের যমযম টাওয়ারে করোনার বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় র্যাবের পদক্ষেপ ও কার্যাবলি নিয়ে স্পট ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা বলেন।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব জানতে পারে, এই কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে এক শ্রেণির অসাধু মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক চোরাকারবারি ট্রাক ও কাভার্ড-ভ্যানে জরুরি পণ্য সেবার আড়ালে মাদক পরিবহন করছে। এই গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল (শনিবার) চট্রগ্রাম ও রংপুরে জরুরি পণ্যবাহী ট্রাকসহ বিপুল পরিমাণ ইয়ায়া, গাঁজা ও ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। আটক করা হয় চারজনকে।’

মাদক চোরাকারবারিদের হুঁশিয়ার করে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘যারা এই কঠোর লকডাউনকে পুঁজি করে মাদক চোরাকারবারি করছে ও মাদক পরিবহন করছে, তাদের বিরুদ্ধে র‍্যাব কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়াও ট্রাক ড্রাইভার, হেল্পারসহ সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘গতকাল আমরা বলেছি, যারা পাড়া-মহল্লাতেও জমায়েত করার চেষ্টা করছে তাদের বিরুদ্ধেও র‍্যাব অভিযান পরিচালনা করবে। গতকাল থেকেই পাড়া-মহল্লাতে অভিযান শুরু করে। পাড়া-মহল্লার ভেতরে জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে, মাইকিং করা হয়েছে এবং মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া পাড়া-মহল্লার বিভিন্ন চায়ের দোকানে বসে অনেক লোককে চা খেতে দেখেছি। তাদেরকে অনুরোধ করা হয়েছে বাসায় থাকার জন্য।’

পোশাক শ্রমিকদের রাস্তাঘাটে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আটকে অনেক সময় নাজেহাল করছেন এমন প্রশ্নের উত্তরে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন,‘গার্মেন্টসের মালিক ও শ্রমিকদের প্রতি অবশ্যই দৃষ্টি রেখেছি। তারা যেন সঠিকভাবে গার্মেন্টসে যেতে পারেন এবং কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেন এই ব্যবস্থা আমরা সব সময়ই করছি। চেকপোস্টে সঠিক পরিচয় দিলে এবং গার্মেন্টসের কথা বললে আমরা তাদের ছেড়ে দিচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘দেশব্যাপী চলমান সাত দিনের কঠোর লকডাউনের গতকাল তৃতীয় দিনে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় সারা দেশে ২৭৭ জনকে প্রায় দুই লাখ টাকা জরিমানা করেছে র্যাব। সারা দেশে ৩১টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা এই অর্থদণ্ড প্রদান করেন।’

আপনার মতামত লিখুন :