বিয়েতে উদ্বুদ্ধ করতে ইরানে ইসলামি ডেটিং অ্যাপ চালু

0
50

তরুণ-তরুণীদের বিয়েতে উদ্বুদ্ধ করতে ইসলামি ডেটিং অ্যাপ চালু করেছে ইরান। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার এমন তথ্য জানিয়েছে দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট। যাদের প্রতিবেদনে বলা হয়, হামদাম বা সঙ্গী নামের এই অ্যাপটির সাহায্যে বিয়ে করতে ইচ্ছুক তরুণ-তরুণীরা পছন্দের সঙ্গী খুঁজতে ও বাছাই করতে পারবেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানে নাগরিকরা বেশি বয়সে বিয়ে করার কারণে দেশটিতে জন্মহার প্রতিনিয়ত হারে কমছে। এ নিয়ে উদ্বেগ বেড়েছে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে। তরুণ-তরুণীরা যাতে দ্রুত সময়ের মধ্যে পছন্দের সঙ্গী খুঁজে নিতে পারেন এমন লক্ষ্যে ডেটিং অ্যাপটি চালু করা হয়েছে।

ইরানে দেরিতে বিয়ে করার প্রবণতা বহু দিনের। এ নিয়ে আগে থেকেই সতর্ক করে আসছে দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনিসহ বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ। অ্যাপটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠান তেবইয়ান কালচারাল ইন্সটিটিউট জানায়, অ্যাপটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স) ব্যবহার করা হয়েছে। যা পাত্র-পাত্রীয় ধরন অনুযায়ী সঙ্গী খুঁজতে সহায়তা করবে।

অ্যাপটির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুসারে, সত্যিকার অবিবাহিত যারা স্থায়ীভাবে বিয়ে ও একমাত্র জীবনসঙ্গীর সন্ধান করছে তাদের সহায়তার জন্যই অ্যাপটিতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার হয়েছে।

ইরানের সাইবারস্পেস পুলিশ প্রধান কর্নেল আলি মোহাম্মদ রাজাবি এ প্রসঙ্গে জানান, ইসলামিক প্রজাতন্ত্রে রাষ্ট্র স্বীকৃত এটাই একমাত্র প্লাটফর্ম। দেশে আগে থেকেই বিভিন্ন ডেটিং অ্যাপ বেশ জনপ্রিয়। তবে হামদাম ছাড়া বাকি সব প্লাটফর্মই অবৈধ।

হামদাম অ্যাপ ব্যবহার করতে প্রথমে ব্যবহারকারীকে নিজের পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে। নিজের সব ধরনের তথ্য দিয়ে সহায়তা করতে হবে। কোনো যুগলের মধ্যে যখন মিল হবে তখন অ্যাপের এক সার্ভিস কনসালটেন্ট দুই জনের পরিবারকে পরিচয় করিয়ে দেবে। বিয়ের পর ওই দম্পতিকে চার বছর সহায়তা করবে কনসালটেন্ট কর্মকর্তা।

ইরানে ১৩ মিলিয়ন বিবাহ উপযুক্ত সিঙ্গেল রয়েছে। যাদের বয়স ১৮ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে। ২০১৯ সালে দেশটিতে ১ লাখ ৭০ হাজার ডিভোর্স হয়েছে। ওই বছর বিয়ে করেছিল ৫ লাখ ২০ হাজার তরুণ-তরুণী।

সূত্র: দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট

আপনার মতামত লিখুন :