প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা উপেক্ষিত করে ভোকেশনাল খেলার মাঠ কেটে ভবন নির্মাণ মেনে নেয়া যায় না

0
85

নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ (ভোকেশনাল) এর খেলার মাঠ রক্ষায় সম্মিলিত শিক্ষর্থী অভিভাবকবৃন্দ কমিটির উদ্যোগে ১৩ আগষ্ট (শুক্রবার) সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠন সমূহের সাথে মতবিনিময় সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মে মাসের শেষের দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন আইলপাড়া পাঠানটুলীস্থ নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ (ভোকেশনাল) কর্তৃপক্ষ খেলার মাঠ কেটে নতুন ভবনের কাজ শুরু করলে মাঠ রক্ষার আন্দোলন সংগ্রাম শুরু হয়।

সংগ্রামের অংশ হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বরাবরে ভবন নির্মাণের চলমান কাজ বন্ধের আবেদন করে কোন প্রতিকার না পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক এর নিকট স্মারকলিপি জমা দেবার বেশ কিছু দিন পেড়িয়ে গেলেও নির্মানকাজ বন্ধের কোন ধরনের পদক্ষেপ না দেখে নাসিক মেয়র ডাঃ সেলিনা হায়াৎ আইভীর নিকট মাঠ রক্ষায় প্রতিকার চেয়ে ভোকেশনাল খেলার মাঠ রক্ষায় সম্মিলিত শিক্ষার্থী অভিভাবকবৃন্দ আবেদন করেন। এ আবেদন গ্রহন করার সময় বিস্তারিত শুনে চলমান নির্মাণ কাজ বন্ধের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। মেয়রের এ পদক্ষেপে শিক্ষার্থীসহ সকলেই সন্তুষ্ট হন।

পরবর্তীতে মেয়র আইভী সরেজমিনে আসেন এবং পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, উত্তর এবং উত্তরপশ্চিমে যে জায়গা রয়েছে যথাযথ পরিকল্পনা থাকলে এই খেলার মাঠ ঠিক রেখে ঐ স্থানে নব ভবন নির্মাণ কাজ করা যেতো, আমার সিটি কর্পোরেশনের কাজ হলে একরকম অপরিকল্পিত ভাবে নির্মাণ কাজ করতাম না, যেখানে প্রধানমন্ত্রীর মাঠ রক্ষা করার নির্দেশনা রয়েছে সেখানে ভোকেশনাল কর্তৃপক্ষ কেন যে এরকম সুন্দর একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠ কেটে ভবন নির্মাণের কাজ করছে তা আমার বুঝে আসেনা। মেয়রের হস্তক্ষেপে কিছু দিন নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকলেও সংগ্রামরত নেতৃবৃন্দের সাথে কোন ধরনের আলোচনা না করে গত ২ জুলাই পূনরায় নির্মাণ কাজ শুরু হলে সকলেই মর্মাহত হয়।

একদিকে ধাপে ধাপে লকডাউন অন্য দিকে নির্মাণ কাজ চলমান, এরকম একটি পরিস্থিতিতে সংগ্রামরত নেতৃবৃন্দ আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় মহামান্য হাইকোর্টের আশ্রয় নেয় এবং মাঠ রক্ষা সকলের পক্ষথেকে কমিটির আহবায়ক গোলাম মোস্তফা সাচ্ বাদী হয়ে একটি রীট পিটিশন করেন।

মাঠ রক্ষা কমিটির আহ্বায়ক ও মুখপাত্র গোলাম মোস্তফা সাচ্ এর সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব কাজী হারুন আল মামুনের সঞ্চালনায় মানব বন্ধনে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড মন্টু ঘোষ, কমিটির উপদেষ্টা মণ্ডলীর অন্যতম সদস্য সমাজকর্মী কমরেড হিমাংশু সাহা, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির কন্ট্রোল কমিশন কমরেড শহিদুল আলম নান্নু, রুপালী তারার মেলার কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম গোলক, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশে যুব মৈত্রীর জেলা যুগ্ম আহ্বায়ক কমরেড মাইন উদ্দিন বারী, বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি ও জেলা সভাপতি জেসমিন আক্তার, সহ সাধারণ সম্পাদক রাফি উদ্দিন আহমেদ প্রাচী, সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের জেলা সভাপতি শুভ বনিক, সাধারণ সম্পাদক ইবনে সানি দেওয়ান, সহ সাধারণ সম্পাদক সংহতি ঘোষ রমা, সাংগঠনিক সম্পাদক ইফাদ ইমতিয়াজ অয়ন্ত, ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি ইলিয়াস জামান, মাঠ রক্ষায় সম্মিলিত কমিটির সদস্য ও জাতীয় ফুটবল দলের খেলোয়াড় মাসুদ রানা, আসমা আক্তার, সজল, আমিনুল ইসলাম রকি, মোঃ আবু সাঈদ, জাহিদুল ইসলাম শুভ, গোলাম মর্তুজা আকাশ, পাবেল, সোহান, বীথি, সীমান্ত প্রমুখ।

সভায় আইনী লড়াইয়ের পাশাপাশি মাঠের সংগ্রাম অব্যাহত রাখার জন্য জোর দিয়ে বক্তারা বলেন, একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে খেলার মাঠ বিলুপ্ত করে ভবন নির্মাণ পৃথিবীর কোন সভ্য দেশের কাজ হতে পারে না, কেননা একটি শিক্ষার্থীর শিক্ষার পাশাপাশি খেলাধুলা তার দৈহিক এবং মনন বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। যা সমাজের এবং রাষ্ট্রের সুস্থ ধারার গতিকে তরান্বিত করতে সহায়ক হিসেবে কাজ করে, আর এই উপলব্ধি থেকে যখন আমাদের প্রধানমন্ত্রী খেলার মাঠ জলাশয় রক্ষার নির্দেশনা দিয়েছেন, তা উপেক্ষা করে খেলার মাঠ কেটে ভবন নির্মাণ করার মতো আত্মঘাতী কাজ কি করে নারায়ণগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ (ভোকেশনাল) কর্তৃপক্ষ নিয়েছে তা কোনো বিবেকবান নাগরিকের বোধগম্য হতে পারে না।

ভোকেশনাল কর্তৃপক্ষের এহেন অপরিকল্পিত এবং পরিবেশ বিমুখ উদ্যোগের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানানো হয়। একই সাথে বক্তারা বলেন, যেহেতু নব ভবন করার মতো প্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরে যথেষ্ট ভূমি রয়েছে তাই খেলার মাঠ ঠিক রেখে নব ভবনের কাজ স্থানান্তর করার জোর দাবি জানিয়ে বলা হয় প্রধানমন্ত্রীর মাঠ রক্ষার নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য যা যা করা দরকার আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

আপনার মতামত লিখুন :