রাজারবাগ পীরের সব আস্তানা বন্ধের নির্দেশ

0
34

সাধারণ মানুষের সঙ্গে ধর্মের নামে ধোঁকা ও প্রতারণা বন্ধ করতে কথিত রাজারবাগ পীর দিল্লুর রহমানের সব আস্তানা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত।

একইসঙ্গে ‘পীর’ ও তার পৃষ্ঠপোষকতায় ‘উলামা আঞ্জুমান বাইয়ি্যনাত’ অথবা ভিন্ন নামে কোনো জঙ্গি সংগঠন আছে কি না, পীরের প্রতিষ্ঠানগুলোর নামে দেশের বিভিন্ন স্থানে থাকা সম্পদ চিহ্নিত করা এবং তার সব সম্পদের উৎস সম্পর্কে বিশদ তদন্তেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক), বাংলাদেশ পুলিশের কাউন্টার টেরিরিজম ইউনিট এবং পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) এ আদেশ বাস্তবায়ন করে আগামী ৬০ দিনের মধ্যে হাইকোর্টে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ প্রথমে মৌখিক আদেশ দেন। রাজারবাগ পীরের দরবার নিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাতদফা সুপারিশ বিবেচনায় নিয়ে গতকাল সোমবার (৪ অক্টোবর) পূর্ণাঙ্গ তথা লিখিত আদেশ দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার (৫ অক্টোবর) বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন রিটকারীদের আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট এক আদেশে রাজধানীর রাজারবাগ দরবার শরিফ এবং পীর দিল্লুর রহমানের সব সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব তদন্ত করতে নির্দেশ দেন। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার বিচারপতিদের স্বাক্ষর শেষে লিখিত আদেশটি প্রকাশ করা হয়।

হাইকোর্টের লিখিত আদেশে বলা হয়েছে, কেন রিট আবেদনকারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মিথ্যা ও হয়রানিমূলক ক্রমাগত ফৌজদারি মামলা দায়েরে জড়িতদের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করে আইনগত ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হবে না বা অত্র আদালতের বিবেচনায় যথাযথ প্রচারযোগ্য এতদ্সংশ্লিষ্ট অন্যবিধ আদেশ বা অধিকতর আদেশ বা আদেশসমূহ প্রচারিত হবে না, তা জানতে রুল জারি করা হয়েছে।

রুলটি বিচারাধীন থাকাবস্থায় ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (সিআইডি) অতিরিক্ত মহা-পুলিশ পরিদর্শককে দরখস্তকারীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন হয়রানিমূলক মামলা দায়েরের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত ও প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নিতে এ আদেশ পাওয়ার ৬০ কার্যদিবসের মধ্যে হাইকোর্টে একটি প্রতিবেদন জমা দানের নির্দেশ দেয়া হলো।

রিট পিটিশনে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের করণীয় নির্ধারণ সংক্রান্ত কমিটির প্রতিবেদন হতে প্রতীয়মান হয়, এ কমিটি সাতটি সুপারিশ করেছে, এরমধ্যে অন্যতম হলো- ক) রাজারবাগের কথিত পীর দিল্লুর রহমান ও তার প্রতিষ্ঠানসমূহের নামে যে সকল সম্পদ রয়েছে তার তালিকা প্রস্তুত করে আয়ের উৎস ও রাজস্ব প্রদানের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে হবে; খ) সাধারণ মানুষকে যেন ধর্মের নামে ধোঁকা দিতে না পারে এবং নিরীহ মানুষের অর্থ-সম্পদ যেন হয়রানীমূলক ভাবে মিথ্যা মামলা করে হাতিয়ে নিতে না পারে সেজন্য রাজারবাগের কথিত পীর দিল্লুর রহমানের মূল আস্তানাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা শাখা কার্যালয়সমূহ বন্ধ করে দিতে হবে। একই সাথে তার বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক কালো তালিকাভুক্ত জঙ্গী সংঘঠন “উলামা আঞ্জুমান আল-বাইয়্যনিাত” এবং তার প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রচারিত সংবাদপত্র “আলবাইয়্যনিাত ও আল ইহসান” নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।

এছাড়াও নথি থেকে জানা যায়, কথিত পীর ও তার দরবার শরীফের নামে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রায় সাত হাজার একর জমি, রাবার বাগান অবৈধ দখলে আছে।

এর আগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাজারবাগ দরবার শরীফের পীর দিল্লুরসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী আট ব্যক্তির পক্ষে অ্যাডভোকেট শিশির মনির হাইকোর্টে এ রিট করেন।

রিটকারীদের মধ্যে শিশু, মহিলা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, মাদরাসার শিক্ষক ও ব্যবসায়ী রয়েছেন। তাদের প্রত্যেকে রাজারবাগ দরবার শরীফের পীর ও তাদের মুরিদদের হয়রানিমূলক মামলার শিকার বলে রিটে উল্লেখ করা হয়।

রিট আবেদনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব ও আইজিপিসহ মোট ২০ জনকে বিবাদী করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :