পরিবহন ধর্মঘটের মধ্যে বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা শনিবার

0
32

পরিবহন বন্ধ থাকলেও যথাসময়ে হবে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) চূড়ান্ত পর্যায়ের ভর্তি পরীক্ষা। আগামীকাল শনিবার সকাল-বিকেল দুই ধাপে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক শ্রেণিতে (চূড়ান্ত) ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। এদিন প্রথম ধাপে ‘ক’ ইউনিটের পরীক্ষা সকাল ১০টায় শুরু হয়ে দুপুর ১২টা পর্যন্ত চলবে। পরের ধাপে ‘খ’ ইউনিটের পরীক্ষা দুপুর ২টায় শুরু হয়ে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত চলবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুয়েটের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিউর রহমান শুক্রবার সন্ধ্যায় বলেন, আগামীকাল শনিবার বুয়েটের চূড়ান্ত ধাপের পরীক্ষা যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে। এ পরীক্ষা পেছানোর কোনো সুযোগ নেই।

সারাদেশে পরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘট অব্যাহত রয়েছে। পরীক্ষার্থীদের যাতায়াতের সমস্যা হতে পারে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা ও একাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুযায়ী বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। সেটি পরিবর্তন করতে হলে নানা ধরনের জটিলতা রয়েছে। এজন্য অনেক সময় প্রয়োজন হয়।

যেহেতু পরীক্ষার বিষয়টি আগে থেকেই নির্ধারিত, তাই কষ্ট করে হলেও নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের পৌঁছাতে আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে বুয়েটের প্রথম ধাপের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল গত ২৬ অক্টোবর প্রকাশ করা। প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষায় উর্ত্তীণ প্রার্থীরা আগামী ১ নভেম্বর সকাল ১০টার পরে বুয়েটের ওয়েবসাইট থেকে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে বলা হয়।

অন্যদিকে তেলের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে শুক্রবার (৫ নভেম্বর) সকাল ৬টা থেকে সারাদেশে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়। জ্বালানি তেলের বর্ধিত দাম না কমানো পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে বলেও জানান বাংলাদেশ আন্তঃজেলা ট্রাকচালক ইউনিয়নের সভাপতি তাজুল ইসলাম।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় রাস্তায় বেরিয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। তারা বলছেন, শুক্রবার থেকে গাড়ি বন্ধ থাকার বিষয়ে তারা অবগত নয়। জরুরি প্রয়োজনে রাস্তায় বেরিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পরিবহন মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ গণমাধ্যমকে বলেন, সারাদেশের মালিকরা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সারাদেশের বাস মালিকদের সেন্টিমেন্টের সঙ্গে আমরা কেন্দ্রীয় মালিক সমিতি একমত।

আপনার মতামত লিখুন :