পালানোর পথ পাবেন না, আয়ু শেষ হয়ে আসছে, সরকারকে নুর

0
53

শরীয়তপুর, লক্ষ্মীপুর, জামালপুর, রাঙ্গামাটি, পাবনা, কুড়িগ্রামসহ সারাদেশে ছাত্র, যুব, শ্রমিক, পেশাজীবী ও গণঅধিকার পরিষদের বিজয় দিবসের র‌্যালিতে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ করেছেন সংগঠনটির সদস্য সচিব ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে আগামীকাল সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মোমবাতি প্রজ্বলন কর্মসূচির ঘোষণাও দেন নুর।

বৃহস্পতিবার (১৬ ডিসেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে সংগঠনটি।

নুর বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধী আইয়ুব খানের মতো আজ ক্ষমতাসীন বিনা ভোটের সরকার হামলা-মামলা করে আমাদের দমাতে পারবে না। অতীততেও আমাদের ওপর হামলা করে ক্ষতবিক্ষত করা হয়েছিল। আমরা থেমে যাইনি, দমে যাইনি, তাই আজ আমাদের সঙ্গে লাখ লাখ মানুষ যোগ দিচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আজ সরকারের এক পাগল সাবেক মন্ত্রী পৃথিবীর কোথাও ঠাই পাননি! আপনারাও পাবেন না। কারণ আপনারা বহু অপরাধ করেছেন, আপনাদের সময় শেষ হয়ে এসেছে। সরকারের কর্মকাণ্ডে সরকারের কিছু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তা আজ বিশ্বের দেশে দেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে, আরও অনেকে সামনে হবেন, পালানোর পথ পাবেন না, আপনাদের আয়ু শেষ হয়ে আসছে।’

হামলার জবাবে নুর বলেন, ‘যতটুকু রক্তের প্রয়োজন তত রক্ত দেবো আমরা, আমাদের মারবেন? আমরা মরতে প্রস্তুত তবে এবার আমরাও কয়েকটাকে নিয়ে মরবো।’

প্রধানমন্ত্রীর শপথ বাক্য সম্পর্কে তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর আজ অবস্থা হয়েছে ‘গায়ে মানে না আপনি মোড়ল’-এর মতো, জনগণ আপনাকে থুথু দিচ্ছে, জনগণ আপনাকে জবাব দেবে। সরকারকে স্পষ্ট করে বলতে চাই, সারাদেশে আমাদের নেতাকর্মীদের ওপর হামলাকারী দলীয় গুণ্ডা বাহিনীকে অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করুন।”

গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেন, ‘আজ ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগ এত লাগামহীন হয়েছে যে, তাদের আর গুম, খুন, নারী ধর্ষণ, হামলা, নিপীড়ন শেখ হাসিনা পর্যন্ত থামাতে পারছে না, তাহলে শেখ হাসিনার আজকের শপথ বাক্য কী আগামীতে বিরোধী দলের ওপর হামলার শপথ?’

গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম-সদস্য সচিব মোহাম্মদ আতাউল্লাহ বলেন, ‘শেখ হাসিনা কয়েকদিন আগে বলেছেন আমাদের দলের ওপর আর হামলা করবে না কিন্তু আজ আমরা কী দেখলাম! শেখ হাসিনার সরকার গাছের গোঁড়া কেটে আগায় পানি ঢালছে, আমরা এর নিন্দা জানাই।’

ছাত্র অধিকার পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আদিব বলেন, ‘সরকার গণঅধিকার পরিষদের আত্মপ্রকাশের কারণে ক্ষমতা হারানোর ভয়ে বারবার আমাদের ওপর হামলা চালাচ্ছে। আজ তারা শরীয়তপুরে আমাদের সহযোদ্ধাদের হামলা করে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে, তাকে ঢাকায় এনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জামালপুরে একজনের আঙুল কেটে ফেলেছে, আমরা আর এসব হামলার প্রতিবাদ করবো না। এখন থেকে পাল্টা জবাব দেওয়া হবে।’

গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক ফারুক হাসানের সঞ্চালনায় এতে আরও উপস্থিত ছিলেন যুগ্ম-আহ্বায়ক বিপ্লব কুমার পোদ্দার, মাহফুজুর রহমান, সাদ্দাম হোসেন, শাকিল উজ্জামান সহকারী আহ্বায়ক তামান্না ফেরদৌস শিখা, জে. আবেদীন, যুগ্ম-সদস্য সচিব মোহাম্মদ আতাউল্লাহ, ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি মোল্লা বিন ইয়ামিন, যুব অধিকার পরিষদের সভাপতি মুনজোর মুর্শেদ মামুন, সাধারণ সম্পাদক নাদিম হাসান প্রমুখ।

আপনার মতামত লিখুন :